দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের প্রথম ভিডিও নিউজ পোর্টাল

বশেফমুবিপ্রবিতে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা - চ্যানেল খুলনা

খুলনা, ৫ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা
দিন
:
ঘণ্টা
:
মিনিট
:
সেকেন্ড

 সর্বশেষ সংবাদ:

বশেফমুবিপ্রবিতে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

প্রকাশিত হয়েছে: শুক্রবার, ১০ জানুয়ারি ২০২০, ৬:২৬ : অপরাহ্ণ

চ্যানেল খুলনা ডেস্কঃবঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেফমুবিপ্রবি) আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি হল রুমে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের চেয়ারম্যান ড. এ. এইচ. এম মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ, বিশেষ অতিথি হিসেবে গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য, সিএসই বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মাহমুদুল আলম, গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মুহম্মদ শাহজালাল, ফিশারিজ বিভাগের রফিকুল বারী মামুনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।প্রধান অতিথির বক্তব্যে বশেফমুবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় অর্জিত হয়েছে। কিন্তু ১০ জানুয়ারি ১৯৭২ সালে আমাদের চূড়ান্ত বিজয় অর্জন হয়েছে, যখন বাঙালি জাতির মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ নামক স্বাধীন রাষ্ট্রে প্রত্যাবর্তন করেন। এ বিজয় বাঙালি জাতির বিজয়, সাড়ে সাত কোটি বাঙালির বিজয়, বাঙালি জাতির মহান নেতা, মহানায়কের বিজয়। আমার মাঝে মাঝে ভাবতে ভালো লাগে এই ভেবে যে, সেই মুহূর্তে বঙ্গবন্ধুর অনুভূতি কেমন ছিল! ৭ মার্চ একটিমাত্র ভাষণ আর তার বদৌলতে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র, একটি স্বাধীন দেশ।’

উপাচার্য আরও বলেন, ‘তোমরা গর্বিত যে তোমরা এমন এক মহান নেতার দেশে জন্ম গ্রহণ করেছ। এই মহান নেতার আদর্শ এবং নীতি তোমাদের বুকে ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হবে।’এর আগে, সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসে উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মহিয়সী নারী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‍্যালিটি জামালপুর শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসে এসে শেষ হয়।